মাইকে আজান ও ইকামতের শরয়ী বিধান।

মুহতারাম মুফতি সাহেব! বর্তমান যুগে মাইকে আজান ও ইকামত দেয়ার শরয়ী বিধান কী? কোথাও মাইকের সাহায্যে আজান ও ইকামত দেয়ার পূর্ণ ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও মুখে আজান ও ইকামত দেয়া কিংবা মুখে আজান আর মাইকে ইকামত দেয়া শরীয়তের দৃষ্টিতে কেমন?

যে সকল বড় জামাতে ইমাম সাহেবের আওয়াজ শেষ পর্যন্ত পৌঁছে না, সে সকল জামাতে মুকাব্বির নিযুক্ত করার শরয়ী বিধান কী?

যদি মুকাব্বির ছাড়াও মাইকের সাহায্যে শেষ পর্যন্ত আওয়াজ পৌঁছানো যায়, তাহলেও মুকাব্বির নিযুক্ত করতে হবে কী?

মাইকের সুব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও ‍মুকাব্বির নিযুক্ত করার পাশাপাশি মাইকে তাকবীর বলার শরয়ী বিধান কী? দলীল প্রমাণসহ বিস্তারিত জানাবেন। আল্লাহ আপনাদের সহায় হোন।

 নিবেদক

মুহা. সুলাইমান

সদর দক্ষিণ, কুমিল্লা

بسْم الله الرّحْمن الرّحيْم

ফত্ওয়া বিভাগ                                                                                    তারিখ: 1/4/1434 হিজরি

জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া,সাত মসজিদ,মুহাম্মদপুর,ঢাকা-১২০৭,মোবাইলঃ ০১৮১৬৩৬৭৯৭৫    

 حامدا و مصليا ومسلما

উত্তরঃ-

মাইকে আজান ও ইকামত দেয়া সম্পূর্ণ বৈধ। বৈধতার বিষয়ে কারো কোনো দ্বিমত নেই। তবে উত্তম অনুত্তম নিয়ে দৃষ্টি ভঙ্গির ভিন্নতা রয়েছে। বর্তমানেও অনেকে মাইকের ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও মুখে আজান ও ইকামত দেয়াকে উত্তম বলেন। তাদের ‍দৃষ্টিভঙ্গি হলো, ইসলামের শুরু যুগ থেকে এভাবেই আজান দেয়া হতো, তাই মুখে আজান দেয়ার মধ্যেই মূল বিষয়ের অনুসরণ রয়েছে। তাই তা উত্তম। তবে চিন্তা করলে একথা প্রতিয়মান হয় যে, ইসলামে আজান প্রবর্তন করার উদ্দেশ্য হলো, এর মাধ্যমে নামাজিদের নামাযের সময় হওয়া সম্পর্কে অবগত করা এবং নামাজের জন্য আহবান করা। বলাবাহুল্য, আজানের আওয়াজ যত উচ্চ হবে ততবেশী মানুষ নামাযের সময় সম্পর্কে অবগত হবে এবং নামাযের দাওয়াত ততবেশী মানুষের নিকট পৌঁছবে। আজান সংক্রান্ত শরিয়তের বিভিন্ন হুকুম থেকেও বিষয়টি স্পষ্ট হয়। যেমন,أذان فى الصومعة  অর্থাৎ- আজান ঘরে আজান দিলে সে ক্ষেত্রে জানালা দিয়ে মাথা বের করে আজান দেয়ার আদেশ রয়েছে। যেন আজানের আওয়াজ দূর পর্যন্ত পৌঁছে। আরো একটি বিষয় হলো যে, আজানকে দাওয়াতে তাম্মাহ তথা পরিপূর্ণ আহবান বলা হয়েছে। তাহলে আজান যেহেতু দাওয়াত, তাই যতদূর পর্যন্ত সম্ভব তার প্রচার হওয়া কাম্য। সুতরাং যেহেতু মাইকে আজান দেয়ার বৈধতা নিয়ে কোনো বিরোধ নেই, তাই মাইকে আজান দেয়া উত্তম হওয়া যুক্তিযুক্ত। কেননা, তাতে শরিয়তের উদ্দেশ্য, মুখে আজান দেয়ার চেয়ে বেশী প্রতিফলিত হয়।

কিন্তু মুখে আজান ও মাইকে ইকামত দেয়ার তেমন কোনো কারণ বুঝে আসে না। তবে হ্যাঁ, যদি তাতে এরূপ দৃষ্টিভঙ্গি থাকে যে, আজান স্বতন্ত্র একটি ইবাদত তাই তাতে আসলের অনুকরণ হোক। আর ইকামত যেহেতু আনুষঙ্গিক বিষয়। তাই তাতে আসলের অনুসরণ না হলেও ক্ষতি নেই। তা হলে ভিন্ন কথা।

আর বড় জামাতে ইমাম সাহেবের আওয়াজ শেষ পর্যন্ত পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা আবশ্যক। অন্যথায় তারা ইমামের অনুসরণ করবে কিভাবে। তবে এ জন্য শুধু মুকাব্বিরেরও ব্যবস্থা করা যেতে পারে। মাইকের পাশাপাশি মুকাব্বিরেরও ব্যবস্থা রাখার প্রয়োজন নেই। তদুপরি সাবধানতা বশত: এমন করা যেতে পারে। কেননা, অনেক সময় বিদ্যুৎ চলে যায় কিংবা মাইক যন্ত্রে গোলযোগ দেখা দেয়।

كما أخرج ابن خزيمة فى صحيحه : (1/ 189)

 عن محمد بن عبد الله بن زيد عن أبيه قال : لما أصبحنا أتينا رسول الله صلى الله عليه و سلم فأخبرته بالرؤيا فقال : إن هذه الرؤيا حق فقم مع بلال فإنه أندى أو أمد صوتا منك.

وفى بدائع الصنائع : (1/ 149)

 أما الذي يرجع إلى نفس الأذان فأنواع منها أن يجهر بالأذان فيرفع به صوته لأن المقصود وهو الإعلام يحصل به ألا ترى أن النبي صلى الله عليه وسلم قال لعبد الله بن زيد علمه بلالا فإنه أندى وأمد صوتا منك … وكذا يجهر بالإقامة لكن دون الجهر بالأذان لأن المطلوب من الأعلام بها دون المقصود من الأذان.

 وفى تبيين الحقائق : (1/ 92)

قال رحمه الله ( ويستدير في صومعته ) هذا إذا لم يمكنه مع ثبات قدميه بأن كانت الصومعة متسعة فيستدير ويخرج رأسه منها ليحصل المقصود به.

وفى الموسوعة الفقهية الكويتية : (10/ 117)

فإن كان صوته لا يبلغ من وراءه فينبغي التبليغ عنه من أحد المأمومين ، والمراد من التكبير ما يشمل تكبيرة الإحرام وغيرها . وقال ابن قدامة : يستحب للإمام أن يجهر بالتكبير ، بحيث يسمع المأمومون ليكبروا ، فإنهم لا يجوز لهم التكبير إلا بعد تكبيره ، فإن لم يمكنه إسماعهم جهر بعض المأمومين ليسمعهم ، أو ليسمع من لا يسمع الإمام . لما روى جابر رضي الله عنه قال : صلى بنا رسول الله صلى الله عليه وسلم وأبو بكر خلفه ، فإذا كبر رسول الله صلى الله عليه وسلم كبر أبو بكر ليسمعنا.

ويراجع أيضا : آلات ِ جدیدہ کی شرعی احکام : مفتی شفیع  رحمہ اللہ

والله اعلم بالصواب

محمد رفيق الاسلام عفى عنه

دار الإفتاء والإرشاد

بالجامعة الرحمانية العربية

سات مسجد محمد بور داكا- 1207

Share

Comments are closed.